উৎসব

একুশে ফেব্রুয়ারি পোস্টার ডিজাইন ও ব্যানার ডিজাইন 2022 এইচডি ডাউনলোড

একুশে ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশ তথা সারা বিশ্বের সমস্ত বাংলা ভাষাভাষী জন্য একটি গৌরবের দিন। কি জন্য এটি একটি শহীদ এবং আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে পালিত হয়। এজন্য বাঙালি জনগণের ভাষা আন্দোলনের গৌরবোজ্জ্বল স্মৃতি জড়িত এবং মন্ত্রী হিসেবে একুশে ফেব্রুয়ারি চিহ্নিত। হাজার ১৯৫২ সালের এই দিনে বাংলাকে পূর্ব পাকিস্তানের অন্যতম রাষ্ট্রভাষা করার জন্য ছাত্ররা আন্দোলন শুরু করেন এবং সেই আন্দোলনে পুলিশের গুলিবর্ষণ করে এতে শহীদ রফিক জব্বার বরকত সালাম সহ আরো অনেকেই ।তাই এই দিনটাকে শহীদ দিবস ঘোষণা করা হয়।

একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের গুরুত্ব ও তাৎপর্য অনেক। এইজন্য জাতিসংঘ কর্তৃক 5 ই আগস্ট 2010 খ্রিস্টাব্দে প্রতিবছর একুশে ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে ঘোষণা করা হয়।

আরো পড়ুন: ২১ শে ফেব্রুয়ারি উক্তি

আরো পড়ুন: একুশে ফেব্রুয়ারি বাণী, ছন্দ স্লোগান

আরো পড়ুন: একুশে ফেব্রুয়ারি কবিতা 2022

আরো পড়ুন: একুশে ফেব্রুয়ারি উক্তি, শুভেচ্ছা, মেসেজ, এসএমএস, বার্তা, ফেসবুক স্ট্যাটাস

আরো পড়ুন: ২১ শে ফেব্রুয়ারি ছবি আঁকা

একুশে ফেব্রুয়ারি পোস্টার ডিজাইন

একুশে ফেব্রুয়ারি উপলক্ষে অনেক পোস্টার ডিজাইন তৈরি করা হয়ে থাকে এবং অনেকে করতে চান। তাই যারা পোস্টার ডিজাইন সংগ্রহ করতে চান তাদের জন্য আমাদের ওয়েবসাইটে অনেকগুলো পোস্টার ডিজাইন রয়েছে সংযুক্ত করা এবং যারা পোস্টার ডিজাইন তৈরি করতে চান তারা এই পোস্টার ডিজাইন গুলো অনুসরণ করে পোস্টার ডিজাইন তৈরি করতে পারবেন

 

একুশে ফেব্রুয়ারি ব্যানার ডিজাইন

আপনি কি একুশে ফেব্রুয়ারির ব্যানার ডিজাইন সংগ্রহ করতে চান তাহলে আমাদের ওয়েবসাইটে ভিজিট করে সংগ্রহ করতে পারবেন। তবে তবে আপনি যদি অফিসে ব্যবহারের ব্যানার ডিজাইন তৈরী করতে চান বা আপডেট পেতে চান তাহলে আমাদের ওয়েবসাইটে অনেকগুলো ব্যানার ডিজাইন তৈরি সংযুক্ত করা হয়েছে এখান থেকে শুরু করতে পারবেন

পরিশেষে বলা যায় যে একুশে ফেব্রুয়ারি মানে গৌরবের দিন, একুশে ফেব্রুয়ারি মানে উৎসবের দিন, একুশে ফেব্রুয়ারি মানে স্মৃতি বিজড়িত শহীদ দিবসের দিন। এজন্য মাতৃভাষা রক্ষা করার জন্য বাঙালিরা ১৯৫২ সালে নিজের মুখে রক্ত বিলিয়ে দিয়ে মাতৃভাষাকে রক্ষা করেছিল। সুতরাং ইউনেস্কো আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা কি 2010 সালে বিশ্বব্যাপী পালন করার জন্য ঘোষণা করে. এই মাতৃভাষা রক্ষা করার জন্য যারা জীবন দিয়েছিল তারা হলেন সফিক রফিক জব্বার বরকত সালাম সহ আরো অনেকে. তাদের শহীদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করার জন্য এই দিনে প্রতিটি শহীদ মিনারে ফুল অর্পণ করা হয় এবং এই দিনটাকে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে বক্তৃতা ও কবিতা আবৃত্তির মধ্য দিয়ে শহীদদের স্মরণ করা হয়.

Related Articles

Back to top button