উৎসব

১৬ ডিসেম্বর ২০২২ মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কর্মসূচি

মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কর্মসূচি

16 ডিসেম্বর মহান জাতীয় বিজয় দিবস বাঙালি জাতির বিজয়ের দিন, আত্মগৌরব উদ্দিন ও উল্লাসের দিন. কারণ 971 সালের এই দিনে বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন নির্বাচিত সরকারের অধীনে পরিচালিত দীর্ঘ নয় মাস রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধে এবং ৩০ লক্ষ শহীদের রক্তের বিনিময়ে অর্জিত হয় মহান বিজয় দিবস বিশ্ব মানচিত্রে একটি স্বাধীন ও সার্বভৌম রাষ্ট্রের অভ্যুদয় ঘটে. তাছাড়াও 2 লক্ষ মা বোনের ইজ্জতের বিনিময়ে এবং কোটি বাঙালির রক্ত আত্মনিবেদন ও গৌরব গাঁথা ঘনত্বের পরাধীনতার অভিশাপ থেকে মুক্তি পায় নির্যাতিত-নিপীড়িত, বঞ্চিত বাঙালি জাতি.

বাঙালি জাতির জনক ও মুক্তিযুদ্ধের মহানায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে দীর্ঘ আন্দোলন-সংগ্রামের মধ্য দিয়ে বাঙালি জাতিকে ঐক্যবদ্ধ করে পাকিস্তানি সৈন্যদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধের পথে এগিয়ে যান. শুধু তাই নয় বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে হাজার ১৯৪৮ সালের ভাষা আন্দোলনের দাবিতে ঝাঁপিয়ে পড়েন বাঙালি জাতি তাদের শহীদ হন অসংখ্য বাঙালি সালাম রফিক জব্বার বরকত সহ আরো অনেকেই, হাজার ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন, ১৯৫৪ সালের যুক্তফ্রন্টের নির্বাচনে জয়লাভ, ১৯৫৬ সালের সংবিধান প্রণয়ন, ১৯৫৮ সালের মার্শাল ল’ বিরোধী আন্দোলন, ১৯৬২ সালের শিক্ষা কমিশনের বিরোধী আন্দোলন, ১৯৬৬ সালের বাঙালি জাতির মুক্তির সনদ, ১৯৬৮ আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলার, ১৯৬৯ সালের গণ আন্দোলন, ছয় দফার আলোকে ১৯৭০ সালের সাধারণ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন এবং ১৯৭১ সালের 7 ই মার্চ বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ভাষণ এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম এবারের সংগ্রাম বিজয়ের সংগ্রাম.

1971 সালের 25 মার্চ কাল রাত্রিতে পাক হানাদার বাহিনী কর্তৃক বাঙালি জাতির উপর নৃশংস হত্যার শুরু হলে 26 শে মার্চ প্রথম প্রহরে স্বাধীনতার ঘোষণা প্রদান করা হয়. বঙ্গবন্ধুর ডাকে সাড়া দিয়ে বাঙালি জাতির স্বাধীনতা যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে এবং পাকিস্তানী হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেন. বঙ্গবন্ধুর ডাকে পুরো বাঙালি জাতি ঐক্যবদ্ধ ঘোষণা করেন এবং যার যা আছে তাই নিয়ে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জনের লক্ষ্যে যুদ্ধের ডাক দেন এবং দীর্ঘ নয় মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ শেষে ১৬ই ডিসেম্বর ঢাকার রেসকোর্স ময়দানে হানাদার বাহিনীর যৌথ বাহিনীর কাছে আনুষ্ঠানিকভাবে আত্মসমর্পণ করেন এবং বিশ্বের বুকে একটি স্বাধীন দেশ হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে বাংলাদেশ. সেই দিন থেকে ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশের জাতীয় দিবস হিসেবে ঘোষণা করা হয় এবং ১৯৭২ সালের ১৬ ডিসেম্বর থেকে বাংলাদেশের জাতীয় দিবস পালন করা হয়.

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কর্মসূচি

Related Articles

Back to top button