অনলাইন

নতুন ভোটার তালিকা হালনাগাদ ২০২২: নতুন ভোটার তালিকা আপডেট (ভোটার তালিকা)

নতুন ভোটার হালনাগাদ 2022 প্রক্রিয়া গত শুক্রবার অর্থাৎ ২০/০৫/২০২২ থেকে শুরু হয়েছে। নির্বাচন কমিশনের প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী হাবিবুল আউয়াল 2022 সালের নতুন ভোটার হালনাগাদ কর্মসূচি চালু করেন। যারা নতুন ভোটার নিবন্ধন করতে ইচ্ছুক তারা নতুন ভোটার তালিকা হালনাগাদ করতে পারবেন। নতুন ভোটার নিবন্ধন করার জন্য কি কি ডকুমেন্ট লাগবে এবং কি কি তথ্য প্রদান করতে হবে তা বিস্তারিত নিয়ে আমরা এই পোস্টে আলোচনা করব।

সুতরাং আজকের আলোচনা নতুন ভোটার হালনাগাদ কখন শুরু হবে এবং নতুন ভোটার তালিকা 2020 সহ বিস্তারিত তথ্য আমাদের এই নিবন্ধে থেকে অবগত হতে পারবেন।

2022 সালে নতুন ভোটার হালনাগাদ কখন শুরু হবে?

নতুন ভোটার নিবন্ধন বা হালনাগাদ কার্যক্রম ইতিমধ্যে শুরু হয়েছে। গত শুক্রবার, 20 শে মে 2022 থেকে নতুন ভোটার নিবন্ধন শুরু হয়েছে। এই ভোটার তালিকা হালনাগাদ ভোটার তালিকা নিবন্ধন কার্যক্রম চলবে আগামী 9 জুন পর্যন্ত। তবে ভোটার তালিকা হালনাগাদ করার সময় নাগরিকদের ভুল তথ্য যাতে না হয় সে জন্য প্রথমবারের মতো একটি বিশেষ পদ্ধতি গ্রহণ করা হয়েছে। এক্ষেত্রে নিবন্ধন কেন্দ্রে নাগরিকদের তত্ত্ব কম্পোজ ও প্রুফ করার পর তাকে একটি ক্রিম দেওয়া হবে। উক্ত ভোটার তথ্য যাচাই করবেন এবং স্বাক্ষর করবেন এবং ডাটা এন্ট্রি অপারেটরের কাছে জমা দিবেন। উক্ত ডাটা এন্ট্রি অপারেটর তাদের নথি এবং অন্যান্য নথি ডাটাবেস সংরক্ষণ করবেন।

তবে ভোটারদের অবশ্যই একটি 16 সংখ্যার অনলাইন জন্ম সনদ, শিক্ষাগত যোগ্যতার প্রশংসা পত্র (যদি থাকে), এনআইডি এর ফটোকপি এবং ইউটিলিটি বিলের কপি প্রদান করতে হবে. প্রথম পর্যায়ে সারাদেশের 139 দুই উপজেলায় বাড়ি বাড়ি গিয়ে তথ্য সংগ্রহ করার জন্য কার্যক্রম পরিচালনা করবে. তবে 140 টি উপজেলায় তথ্য সংগ্রহের কার্যক্রম পরিকল্পনা সিদ্ধান্ত নেওয়া হলেও সিলেটের কানাইঘাট উপজেলার তথ্য সংগ্রহ স্থগিত থাকবে বন্যার কারণে.

নতুন ভোটার তালিকা আপডেট 2022

যারা এখনো নতুন ভোটার হয়নি বা যাদের বয়স 15 বছরের উপরে বা 18 বছরের উপরে হয়েছে তারা নতুনভাবে ভোটার তালিকা নিবন্ধন করতে পারবেন। গত শুক্রবার বিসিবি 2022 ভোটার তালিকা হালনাগাদ কর্মসূচির উদ্বোধন করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী হাবিবুল আউয়াল। তিনি সারাদেশের 140 টি উপজেলার ভোটার তালিকা হালনাগাদ করার পরিকল্পনা গ্রহণ করেন তবে 139 টির কার্যক্রম শুরু হয়। তবে ইজি জানায় আগামী ১০ জুন নিবন্ধন কার্যক্রম শুরু হবে। প্রথম ধাপের নিবন্ধন শেষ হবে 21 জুলাইয়ের মধ্যে. তবে দেশের বাকি সকল উপজেলা গুলোর ভোটার নিবন্ধন কার্যক্রম ধাপে ধাপে চলবে এবং এই বছরের 20 নভেম্বর পর্যন্ত কার্যক্রম চলবে.

তবে ইসি থেকে আরো জানা যায় টানা তিন বছর ভোট দেওয়ার যোগ্য দের তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করা হবে এবং আগামী তিন বছরে ভোটার সংখ্যা 8.5% বানানোর লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এই ভোটার তালিকা হালনাগাদ এবং নতুন ভোটার নিবন্ধন করে আগামী ০২ মার্চ ২০২৩ চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করা হবে। তারপর দোসরা মার্চ 2024 এর চূড়ান্ত ভোটার তালিকা পোস্ট করা হবে.

নতুন ভোটার নিবন্ধন 2022

ভোটার হালনাগাদ শেষ হওয়ার পর ইলেকশন কমিশন দ্বিতীয় পর্যায়ের কার্যক্রম শুরু করবেন। আগামী জুন মাসের 10 তারিখ থেকে নতুন ভোটার তালিকাভুক্ত শুরু হবে এবং ২১ জুলাই 2012 পর্যন্ত এ প্রক্রিয়া চলবে। এজেন্ডার নতুন ভোটারদের নির্বাচনি ছবি, আঙ্গুলের ছাপ, চোখের ছবি ও চিহ্ন সহ সকল কিছু সংগ্রহ করবেন.

নতুন ভোটার নিবন্ধন প্রক্রিয়া ধাপে ধাপে এই বছরের 20 নভেম্বর পর্যন্ত চলবে। নতুন নির্বাচকরা নির্বাচন কমিশনের সাইটে গিয়ে তাদের এনআইডি তালিকাভুক্ত করতে এবং অর্জন করতে পারেন।

এনআইডি নিবন্ধন করুন

যারা নতুন ভোটার তাদের জন্য এই সুযোগটি থাকবে। সুতরাং আপনি যদি একজন নতুন ভোটার হন, তাহলে এই সুযোগটি মিস করবেন না। এনআইডি এর জন্য আবেদন করুন এবং এনআইডি কার্ড সংগ্রহ করুন।

ভোটার তালিকা হালনাগাদ কাগজপত্র

ভোটার তালিকা হালনাগাদ করার জন্য কিছু প্রয়োজনীয় কাগজপত্রের পড়ে যান হবে। তালিকাভুক্তির সময় আপনার ফর্ম 2 এর জন্য কিছু কাগজপত্র প্রয়োজন যেমন:

  1. এসএসসি বা সমমানের সার্টিফিকেট
  2. জন্ম শংসাপত্র
  3. পাসপোর্ট/ড্রাইভিং লাইসেন্স/টিআইএন সার্টিফিকেট
  4. ইউটিলিটি বিলের কপি/বাড়ি ভাড়ার রসিদ/হোল্ডিং ট্যাক্সের রসিদ – (ঠিকানার প্রমাণ হিসেবে)
  5. নাগরিকত্ব শংসাপত্র (প্রযোজ্য হিসাবে)
  6. বাবা, মা, স্বামী/স্ত্রীর আইডি কার্ডের ফটোকপি।

কিছু ক্ষেত্রে আপনাকে ঘোষিত বিশেষ এলাকার জন্য একটি বিশেষ ফর্ম পূরণ করতে হতে পারে।

ডুবলিকেট এনআইডি প্রদান

যদি কোনো নাগরিকের জাতীয় পরিচয় পত্র হারিয়ে যায় বা কোনোভাবে নষ্ট হয়ে যায়, তাহলে সেই ভোটার নতুন করে এনআইডি উই;য়ে নির্ধারিত পদ্ধতিতে আবেদন করতে পারবেন। একটি আবেদনপত্র প্রাপ্তির পর এনআইডি উইং এর নির্ধারিত সময়ের মধ্যে এবং নির্ধারিত পদ্ধতিতে জাতীয় নাগরিক কে একটি নতুন জাতীয় পরিচয় পত্র প্রদান করা হবে।

এনআইডি সংশোধন

যদি কোনো নাগরিক বা ভোটার তথ্য সংশোধন করতে চান তাহলে আবেদনকারীকে অবশ্যই সভাপতি সহ আবেদন করতে হবে। তবে কাগজপত্র হিসাবে এসএসসি পাস হলে এসএসসি সার্টিফিকেট অগ্রাধিকার পাবে।

এছাড়াও, জন্ম নিবন্ধন শংসাপত্র, পাসপোর্ট, ড্রাইভিং লাইসেন্স, বিবাহ/তালাক সার্টিফিকেট, সংবাদপত্রে প্রকাশিত সার্কুলেশন, ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টের হলফনামা, সার্ভিস বুক ইত্যাদির প্রয়োজন হতে পারে

উপরোক্ত আলোচনা থেকে বোঝা যায় যে ভোটার তালিকা হালনাগাদ এবং নতুন ভোটার নিবন্ধন ও বিস্তারিত তথ্য আমরা এই পোস্টটি তুলে ধরেছি। আশা করি পোষ্টটি সম্পর্কে বুঝতে পেরেছেন। কিভাবে আপনি ভোটার তালিকা হালনাগাদ করবেন এবং কত সময়ের মধ্যে করতে হবে। তাছাড়া নতুন ভোটার নিবন্ধন সহ বিস্তারিত তথ্য আমাদের এই পোস্ট থেকে জানতে পারবেন। সুতরাং আমরা আরও এনআইডি সংক্রান্ত অনেক পোস্ট আমাদের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করেছি যেগুলো থাকে বিস্তারিত ধারণা নিতে পারেন

Related Articles

Back to top button